করোনা ভাইরাসকে পুঁজিকরে বেপরোয়া সিলেট সিএনজি চালকরা

স্বাস্থ্যবিধি কোনো তোয়াক্কা না করে সিলেট নগরীর আম্বরখানা বন্দরবাজার সিএনজি স্ট্যান্ডে পাঁচজন যাত্রীর কম কেউ পরিবহন করে না ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালকরা ও মাস্ক ব্যবহার করছে না আজ সোমবার ০৩ মে নগরীর আম্বরখানা বন্দরবাজার সিএনজি স্ট্যান্ডে দেখা যায় এই চিত্র।

মহামারি করোনা ভাইরাস এবং লকডাউনের কারণে যখন পুরো দেশের মানুষ দিশেহারা। সরকার যখন মানুষের জীবনকে সাভাবিক রাখতে সীমিত আকারে যানবাহন ও শপিংমল খুলে দিয়েছে। সিএনজি অটোরিকশা চালকদের এসব ভাড়া নৈরাজ্যের কারণে সিলেট মহানগরীর যাত্রীরা এখন অতিষ্ঠ। তাদের দাবিকৃত ভাড়া না দিলে পুরুষ এমনকি মহিলা যাত্রীদেরও লাঞ্ছিত করতে পিছপা হয়না এসব চালকরা।

তাদের হাতে এখন জিম্মি হয়ে পড়েছে যাত্রী সাধারণ। দিন-দিন চালকরা তাদের ইচ্ছেমতো ভাড়া বৃদ্ধি করছে। কোনো নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে নৈরাজ্য চালিয়ে যাচ্ছে এরা।

সেই সুযোগ নিয়ে সিলেটে সাধারণ যাত্রীদের জনগণের পকেট কাটছেন সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালকরা।

অটোরিকশা চালকরা সিলেট নগরীতে হরহামেশাই নিচ্ছেন অতিরিক্ত ভাড়া। যাত্রীরাও নিরোপায় হয়ে মান বাঁচাতে তাদের সাথে তর্কে না গিয়ে নিরবেই দিয়ে যাচ্ছেন অতিরিক্ত ভাড়া। কোথাও কোথাও আবার ভাড়া নিয়ে চলছে বাকযুদ্ধ। তবে এ যুদ্ধে জিতে যাচ্ছেন চালকরাই।

এরকম প্রতিনিয়ত সিলেটে অটোরিকশা চালকদের কাছে অসহায় সাধারণ যাত্রীরা।

জয় নামের একজন যাত্রী বলেন- আমি একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশায় উঠার পর দেখি যেখানে ৩ জন যাত্রী উঠানোর কথা সেখানে ৫জন নিচ্ছেন আবার অতিরিক্ত ভাড়াও দাবী করছেন। এভাবে তাদের অত্যাচারে সাধারণ যাত্রী একরকম জিম্মি অবস্থায় রয়েছেন।

এসএমপির মুখপাত্র ও এডিসি বি.এম আশরাফ উল্লাহ তাহের বলেন, এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে কেউ বেশী ভাড়া আদায় করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *