প্রতিবন্ধীদের সাংসদ শিউলী আজাদের রমজানের উপহার

সরকার দলীয় সংরক্ষিত আসনের সাংসদ উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম ওরফে শিউলি আজাদের পক্ষ থেকে আজ শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) দরিদ্র ও প্রতিবন্ধদের বাড়ি বাড়ি রমজানের উপহার পৌঁছে দিলেন শিউলী আজাদের কর্মীসমর্থকরা। অরুয়াইল -পাকশিমুল এলাকার কয়েকটি গ্রামে প্রতিবন্ধী ও দরিদ্র পরিবারের মাঝে এ উপহার সামগ্রী দেয়া হয়। গত বছরও দরিদ্র অসহায়দের বাড়ি বাড়ি ঈদের নতুন কাপড় পৌঁছে দিয়েছিলেন তাঁর কর্মীসমর্থকরা।

একজন সম্মানিত সংসদ সদস্যের পক্ষ থেকে রমজান উপলক্ষে উপহারের ব্যাগ পেয়ে খুশি প্রতিবন্ধী পরিবারের লোকজন। উপজেলার অরুয়াইল ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের বাসিন্দা প্রতিবন্ধ সজলের মা হাসিনা বেগম বলেন, আমার প্রতিবন্ধ ছেলে মেয়ের জন্য শিউলী আজাদ এমপি ম্যাডাম উপহার পাঠিয়েছেন শুনে খুব খুশি হয়েছি। সারাজীবন শুধু ভোট দিলাম কিন্ত জীবনে কোনদিন এমপির জিনিস পাইনি। ম্যাডামের জন্য প্রাণ ভরে দোয়া করবো। গত বছর ম্যাডাম আমার প্রতিবন্ধী বাচ্ছাগুলোকে এসে দেখে গেছেন।

পাকশিমুল ইউনিয়নের বরইচারা গ্রামের প্রতিবন্ধী শাহীনের মা ফাতেমা বেগম বলেন, যেখানে দেশের মেম্বার চেয়ারম্যানই আমাদের এক কেজি লবণ দেয়না সেখানে এমপি আমাদের জন্য ব্যাগ ভরে বাজার পাঠাইছে, এর চেয়ে আনন্দের খবর আর কি হতে পারে? আমরা নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে তাঁর জন্য দোয়া করবো।

কাকরিয়া গ্রামের জন্ম প্রতিবন্ধী সুকেলের পিতা সিরাজ মিয়া বলেন, এমপি আমার ছেলের জন্য উপহার পাঠিয়েছেন এটা অনেক খুশির খবর। আমাদের খবর তো মেম্বার চেয়ারম্যানই নেয় না। অথচ এমপি শিউলী আজাদ আমাদের সুখ দুঃখের খবর রাখে। আল্লাহ তাঁরে দীর্ঘ হায়াত দান করুক।

এমপি শিউলী আজাদের একনিষ্ঠ কর্মী অরুয়াইল ইউনিয়ন থেকে দলীয় চেয়ারম্যান মনোনয়ন প্রত্যাশী জাবেদ আল হাসান বলেন, আমরা ম্যাডামের নির্দেশে অরুয়াইল পাকশিমুল এলাকার অসহায় মানুষদের খোঁজ খবর রাখি,দূর্দিনে তাদের পাশে দাঁড়ায়। গত বছরও আমরা গরীবের মাঝে ম্যাডামের পক্ষ থেকে ঈদি কাপড় বিতরণ করেছি। এবারও আমরা গরীব অসহায় প্রতিবন্ধীদের বাড়িতে বাড়িতে রমজানের কিছু প্রয়োজনীয় খাবার সামগ্রী পাঠিয়েছি। আমাদের এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ।

জাবেদ আল হাসান আরও বলেন,আমাদের নেত্রী শিউলী আজাদ বিপদে আপদে সব সময় এলাকাবাসীর পাশে থেকে তাদের দুঃখ দুর্দশাকে আপন করে নিয়ে, লোভ, লালসা ও হিংসার পথ পরিহার করে রাজনৈতিক কর্মকান্ড চালিশে যাচ্ছেন। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে ছুটে চলছেন গ্রাম থেকে গ্রামে। এ কারণেই মাত্র চার বছরের রাজনৈতিক জীবনে পেয়েছেন অসামান্য সাফল্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *