শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১১:৪১ অপরাহ্ন

sakarya escort sakarya escort sakarya escort serdivan escort webmaster forum

serdivan escort serdivan escort serdivan escort hendek escort ferizli escort geyve escort akyazı escort karasu escort sapanca escort

সাড়ে পাঁচ লাখ কোটি টাকায় হলিউডি স্বপ্ন সৌদি আরবের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট : রবিবার, ৭ নভেম্বর, ২০২১
  • ৩৪ বার পঠিত
হলিউডি স্বপ্ন সৌদি আরবের

সাড়ে পাঁচ লাখ কোটি টাকায় হলিউডি স্বপ্ন সৌদি আরবের। সৌদি আরব সিনেমার ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে মাত্র ২০১৮ সালে। এর আগে সে দেশে কয়েক দশক ধরে সিনেমা নিষিদ্ধ ছিল। কিন্তু সে নিষেধাজ্ঞা তুলতে না তুলতেই এই মরু রাজতন্ত্র ইতিমধ্যেই হলিউডি স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে। আর এজন্য সদ্য জন্ম নেওয়া বিনোদন শিল্পে দেশটি ৬৪ বিলিয়ন ডলার বা প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ কোটি টাকা বিনিয়োগ করছে।

শুধু তেলের ওপর নির্ভরশীল অর্থনীতি থেকে সরে আসা এবং মধ্যপ্রাচ্যের প্রধান সিনেমা হাব ও বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলার বৃহত্তর প্রচেষ্টার অংশ হিসেবেই এই বিশাল বিনিয়োগ করছে সৌদি আরব। অ্যান্থনি ম্যাকি (মার্ভেলের নতুন ক্যাপ্টেন আমেরিকা) অভিনীত অ্যাকশন ফ্লিক ‘ডেজার্ট ওয়ারিয়র’ সম্পূর্ণভাবে সৌদি আরবে চিত্রায়িত হচ্ছে এবং জেরার্ড বাটলারের সর্বশেষ থ্রিলার ‘কান্দাহার’ এই মাসে আল-উলা অঞ্চলে প্রধান ফটোগ্রাফি শুরু করছে। আল-উলা অঞ্চলটি ইউনেসকোর বিশ্ব ঐতিহ্যের একটি স্থান। গত বছর সৌদি আরবে পর্যটন চালুর অংশ হিসেবে সাইটটি বিশ্বের পর্যটকদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। যেখানে প্রাক-ইসলামি যুগের অনেক স্থাপনার ধ্বংসাবশেষ রয়েছে, যা এত দিন অবহেলিত ছিল।

এই অঞ্চলের জন্য সৌদি নিযুক্ত ফিল্ম কমিশনার স্টিফেন স্ট্র্যাচান বলেন, ‘আমরাই প্রথম শুরু করেছি, এর আগে এখানে আর কেউ আসেনি। আল-উলাকে আমরা একটি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখছি’। এটি সৌদি আরবের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন, যেখানে মাত্র কয়েক বছর আগে নারীদের গাড়ি চালানো নিষিদ্ধ ছিল, রেস্তোরাঁগুলোতে নারী-পুরুষ একসঙ্গে বসতে পারত না এবং বেশির ভাগ বিনোদনমূলক কর্মকাণ্ড, মিউজিক কনসার্ট এবং সিনেমা দেখাকে অনৈসলামিক আখ্যায়িত করে নিষিদ্ধ করে রাখা হয়েছিল। অবশেষে, ২০১৭ সালে ক্ষমতার নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর থেকে ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান সামাজিক বিধিনিষেধ শিথিল করতে শুরু করেন এবং প্রচুর কনসার্ট ও বিনোদনমূলক ইভেন্ট চালু করেন।

কিন্তু এই রূপান্তরের আরেকটি দিক আছে। যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ভিন্নমতাবলম্বীদের কারাগারে বন্দী করেছেন, সমালোচকদের কণ্ঠ নীরব করে দিয়েছেন এবং ওয়াশিংটন পোস্টের সমালোচনামূলক কলামিস্ট জামাল খাশোগিকে হত্যার নির্দেশ দেওয়ার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাকে অভিযুক্ত করেছে, যে অভিযোগ সৌদি আরব অস্বীকার করেছে। হলিউডি তারকাদের সম্ভাব্য ব্লকবাস্টার ছবির শুটিং করতে আসাকে সরকারের ইমেজ পুনরুদ্ধারের জন্য একটি অভ্যুত্থান হিসেবে দেখা হচ্ছে। কিন্তু মানবাধিকার কর্মীদের মতে, রাজনীতির অন্ধকার দিকগুলো ঢেকে রাখার জন্যই এই পদক্ষেপ নিয়েছে সৌদি রাজতন্ত্র।

স্ট্র্যাচান বলেন, ‘আমি মনে করি মানুষ মাঝে মাঝে সৌদি আরব সম্পর্কে ভুল ধারণা পোষণ করে। দেশটি খুবই আধুনিক হয়ে উঠছে। ‘কান্দাহার’ সিনেমা নিয়ে কী হয় তা দেখার অপেক্ষায় রয়েছে হলিউড। আর মানুষ সৌদি আরবে সাংস্কৃতিক পরিবর্তনে আগ্রহী’। ক্যালিফোর্নিয়া-ভিত্তিক থান্ডার রোডের সান্তা মনিকার পাশাপাশি সৌদি মালিকানাধীন টিভি জায়ান্ট এমবিসি ‘কান্দাহার’ ছবি নির্মাণে অর্থায়ন করছে। এই ছবিতে জেরার্ড বাটলার আফগানিস্তানে কর্মরত একজন গোপন সিআইএ এজেন্ট এর চরিত্রে অভিনয় করছেন, যাকে শত্রু অঞ্চল থেকে বেরিয়ে আসার পথে দুঃসাহসী সব লড়াই করতে হবে।
হলিউডি স্বপ্ন সৌদি আরবের
এমবিসি স্টুডিওর প্রধান পিটার স্মিথ বলেন, ‘আমি স্ক্রিপ্ট পছন্দ করেছি, এবং জেরার্ড বাটলার একটি ক্লাসিক নাম’। স্মিথ এর আগে এনবিসি ইউনিভার্সাল ইন্টারন্যাশনালের সভাপতি ছিলেন এবং সৌদি আরব ও এই অঞ্চলে আউটপুট বাড়ানোর জন্য ২০১৮ সালে এমবিসিতে যোগ দেন। নেটফ্লিক্সও ব্যবসার বাড়ানোর সুযোগ দেখছে। এই স্ট্রিমিং জায়ান্ট সৌদি স্টুডিও তেলফাজ-১১ এর সঙ্গে আটটি ফিচার ফিল্ম বানানোর চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। নেটফ্লিক্স তার ফ্ল্যাটফর্মে মধ্যপ্রাচ্যের বিষয়বস্তু বাড়াতে চায়।

কিন্তু সৌদি আরব কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখোমুখি হবে। কারণ মরক্কো এবং জর্ডান দীর্ঘদিন ধরে মরুভূমির শুটিং লোকেশন হিসেবে কাজ করেছে। জর্ডানের ওয়াদি রামে ২০১৫ সালের সাই-ফাই ফিল্ম ‘দ্য মার্শান’-এর মঙ্গল গ্রহের দৃশ্যগুলোর শুটিং হয়েছে। এছাড়া ‘স্টার ওয়ারস: দ্য রাইজ অফ স্কাইওয়াকার’-এর এলিয়েন গ্রহের দৃশ্যগুলোর শুটিংও হয়েছে সেখানে। সৌদি আরব প্রতিবেশী সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখেও পড়বে। সেখানে ‘মিশন ইম্পসিবল: ঘোস্ট প্রোটোকল-এর মতো ব্লকবাস্টার সিনেমার শুটিং করা হয়েছে।

ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির ভেতরের কিছু ব্যক্তিও ভিসা পেতে বা বিমানবন্দর দিয়ে মালামাল পেতে সমস্যা হওয়ার অভিযোগ করেন। আর কয়েক দশক ধরে সিনেমা বন্ধ থাকার ফলে বেশি অভিজ্ঞতা সম্পন্ন আরব দেশগুলোর তুলনায় স্থানীয় কোনো প্রতিভা পাওয়াও কঠিন হবে সৌদি আরবে। যা হোক বিনোদন শিল্পের দ্রুত বিকাশের জন্য সৌদি আরব তার প্রথম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব আয়োজন করতে যাচ্ছে। ঐতিহাসিক উপকূলীয় শহর জেদ্দায় ডিসেম্বরে শুরু হতে যাচ্ছে রেড সি ফেস্টিভ্যাল। এই উৎসবের চেয়ারম্যান সৌদি প্রযোজক মোহাম্মদ আল তুর্কি, যিনি রিচার্ড গ্রের অভিনীত ২০১২ সালের ক্রাইম ড্রামা ‘আরবিট্রেজ’ সহ অনেক চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন।

আল তুর্কি কানের মতো প্রধান উৎসবগুলোতে ভ্রমণ করছেন, যেখানে রেড সি এইডস গবেষণার জন্য আম্ফার গালাকে স্পনসর করেছে, সেখানে স্পাইক লি-এর মতো সিনেমা শিল্পের রাজকীয় মুখরা উপস্থিত ছিলেন। ভেনিস ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে রেড সি এক নারীকে ফিল্ম ইভেন্টে হাজির করে, যা ডেমি মুর এবং কেট হাডসনের মতো তারকাদের আকর্ষণ করেছিল। আল তুর্কি বলেন, ‘আমরা ফিল্ম বানানোর জন্য এই অঞ্চলের কেন্দ্র হতে চাই এবং এখানে সৃজনশীলতা ও সম্ভাবনা অপরিসীম’।

৩৫ বছর বয়সী আল তুর্কির জন্য এটি একটি ব্যক্তিগত বিষয়ও বটে। তিনি এক দশক আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চলচ্চিত্র প্রযোজক হওয়ার জন্য সৌদি আরব ছেড়েছিলেন এবং সিনেমা দেখার জন্য তার বাড়িতে ভিএইচএস টেপ এনেছিলেন বা প্রতিবেশী বাহরাইনের সিনেমা হলে যেতেন। আর এখন, তিনি একটি স্বদেশি চলচ্চিত্র উৎসবের আয়োজন করতে ফিরে এসেছেন। তিনি বলেন, সৌদিতে উৎসব ও প্রতিভা দেখে মানুষ অবাক হবে। অবশেষে আমরা এটি ঘটাতে চলেছি’।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
© All rights reserved © 2021 Dailynobobarta
Developed By Dailynobobarta