dailynobobarta logo
আজ বুধবার, ৩০ আগস্ট ২০২৩ | ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | কনভার্টার
  1. অন্যান্য
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. খেলাধুলা
  5. গণমাধ্যম
  6. ধর্ম
  7. প্রযুক্তি
  8. বাংলাদেশ
  9. বিনোদন
  10. বিশেষ নিবন্ধ
  11. লাইফস্টাইল
  12. শিক্ষা
  13. শিক্ষাঙ্গন
  14. সারাদেশ
  15. সাহিত্য

এশিয়া কাপে পাকিস্তানের শুভ সূচনা

প্রতিবেদক
স্পোর্টস ডেস্ক
বুধবার, ৩০ আগস্ট ২০২৩ | ১১:১৪ অপরাহ্ণ
এশিয়া কাপে পাকিস্তানের শুভ সূচনা

অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে পর্দা উঠল এশিয়ার ক্রিকেট শ্রেষ্টত্বের লড়াই এশিয়া কাপের। মুলতান ক্রিকেট গ্রাউন্ডে আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে অনুমিত জয় দিয়েই আসর শুরু করল শিরোপার অন্যতম দাবিদার পাকিস্তান।

উদ্বোধনী ম্যাচে নেপালকে নিয়ে রীতিমতো ছেলেখেলা করেছে বাবর আজমের দল। আগে ব্যাট করে ৩৪২ রান করার পর নেপালকে ১০৪ রানে গুটিয়ে দিয়েছে পাকিস্তান। ফলে বাবর বাহিনী পেয়েছে ২৩৮ রানের বিশাল জয়।

২৪৩ রানের বিশাল টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই চাপে পড়ে নেপাল। শাহিন শাহ আফ্রিদির করা প্রথম ওভারে আউট হন কুশল বুর্তেল (৮) ও অধিনায়ক রোহিত পাডৌলে (০)। পরের ওভারে আসিফ শেখকে (৫) সাজঘরে পাঠান নাসিম শাহ।

শুরুর তোপ দেখে নেপালের ইনিংস পঞ্চাশের নিচে থেমে যাওয়ার শঙ্কা জেগেছিল তবে এই চাপ সামাল দেন আরিফ শেখ ও সম্পাল কামি। তাদের মধ্যকার ৫৯ রানের জুটি নেপালের ইনিংসকে পথ দেখায়। তবে দলীয় ৭৩ রানে আরিফ শেখের উইকেট হারিয়ে আবার বিপর্যয়ে পড়ে দলটি। সেই বিপর্যয় আর কাটিয়ে উঠতে পারেনি নেপাল, তাদের ইনিংস থামে মাত্র ১০৪ রানে।

পাকিস্তানের পক্ষে স্পিনার শাদাব খান ২৭ রানের বিনিময়ে ৪ উইকেট শিকার করেন। শাহিন আফ্রিদি ও হারিস রউফের শিকার ২টি করে উইকেট। এর আগে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে অধিনায়ক বাবর আজমের ১৫১ রান এবং ইফতিখার আহমেদের হার না মানা ১০৯ রানে ৩৪২ রানের বিশাল সংগ্রহ করে এবারের আসরের সহ-আয়োজক পাকিস্তান।

শুরুতে ব্যাটিং করা পাকিস্তানকে শুরুতেই চাপে ফেলে নবাগত নেপাল। শুরুতেই ব্যর্থ হয়ে ফিরে যান পাকিস্তানের দুই ওপেনার। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে কারান এলসির বল ঠিকভাবে খেলতে পারেননি পাক উদ্বোধনী ব্যাটার ফখর জামান। ব্যাটের কানায় লেগে বল চলে যায় উইকেটের পেছনে। ঝাঁপিয়ে পড়ে দু’হাতে ক্যাচ তালুবন্দি করলেন আসিফ শেখ। সাজঘরে ফেরার আগে ২০ বলে ১৪ রান করেছেন ফখর।

ফখরের পর দুর্ভাগ্যজনক রানআউটের শিকার হয়েছেন আরেক তারকা ব্যাটার ইমাম-উল-হক। সোমপাল কামির ফুলার লেন্থের বল মিডঅফে খেলেছিলেন ইমাম। অনায়াসে সিঙ্গেল নেওয়া যায়। ফিল্ডিং প্রান্তে দাঁড়িয়ে থাকা রোহিত কুমারের সরাসরি থ্রোয়িংয়ে শেষ রক্ষা হয়নি ইমামের। আউট হওয়ার আগে ১৪ বলে ৫ রান করেছেন তিনি।

২৫ রানে ২ উইকেট পতনের পর অভিজ্ঞ দুই ব্যাটার বাবর আজম ও রিজওয়ানের ব্যাটে ঘুরে দাড়ায় পাকিস্তান। বাবর – রিজওয়ানের দেখে শুনে ব্যাটিংয়ে দলীয় শতক আসে ২২তম ওভারে। দুই ব্যাটারই ছিলেন অর্ধশতকের কাছে। তবে এরপরই আবার আঘাত হানে নেপাল।

ব্যক্তিগত অর্ধশতকের দ্বারপ্রান্তে থাকা রিজওয়ান ইমাম উল হকের পর দিনের দ্বিতীয় রানআউটের শিকার হন। সন্দ্বীপ লামিচানের বল কাভারে ঠেলেই সিঙ্গেল নিতে চেয়েছিলেন। প্রান্ত বদল পূর্ণ করার আগেই দিপেন্দ্রা সিং আইরের থ্রোয়িং থেকে ননস্ট্রাইকিং প্রান্তের স্ট্যাম্প ততক্ষণে উড়ে গেছে। ৫০ বলে ৪৪ করেছেন রিজওয়ান।

রিজওয়ানের পর নামলেন আর উঠলেন তরুণ ব্যাটার আগা সালমান। এবারো বোলার সেই লামিচানে। রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়েছিলেন পাক ব্যাটার। ঠিকঠাক খেলতে পারেননি। কুশাল ভুরটেলের হাতে ধরা পড়ে ১৪ বলে মাত্র ৫ রান করে ফিরে গেছেন তিনি।

তবে উইকেট যেতে থাকলেও এক প্রান্ত আগলে রেখে খেলতে থাকেন পাকিস্তানের সেরা ব্যাটার বাবর আজম। পাকিস্তানের হাল ধরার সাথে নতুন রেকর্ডও নিজের করে নেন বাবর আজম। ইনিংসের হিসেবে দ্রুততম সময়ে ১৯টি ওয়ানডে সেঞ্চুরি হলো পাকিস্তান অধিনায়কের। এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে আজ ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১৯তম সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন বাবর।

পঞ্চম উইকেট জুটিতে ইফতিখার আহমেদকে সঙ্গে নিয়ে নেপালের বোলারদের কচুকাটা করেন বাবর। এক সময় মনে হচ্ছিল হয়ত নেপালকে কোনো মামুলি লক্ষ্যই দেবে পাকিস্তান। কিন্তু এই দুজনের ব্যাটে তরতর করে রান বাড়তে থাকে। ২৮তম ওভারের শেষ বলে ক্রিজে আসেন ইফতিখার।

এরপর পঞ্চাশতম ওভারের চতুর্থ বলে যখন বাবর বিদায় নেন ততক্ষণে পাকিস্তানের স্কোরকার্ডে তারা যোগ করেন ২২৪ রান। মাত্র ১৩১ বলে ১৫১ রান করেন বাবর। মাত্র ১০৪ ওয়ানডের ১০২ ইনিংসে ব্যাট করেই ১৯তম সেঞ্চুরি তুলে নেন তিনি।

ইফতিখার সেঞ্চুরি করেন ৬৭ বলে, তিনি অপরাজিত থাকেন ৭১ বলে ১০৯ রানে।

৫০ ওভারে ৬ উইকেটে পাকিস্তান থামে ৩৪২ রানে। নেপালের হয়ে সোমপাল কামী ১০ ওভারে ৮৫ রান দিয়ে ২ উইকেট শিকার করেন। এছাড়া ৯ ওভারে ৫৪ রান দিয়ে ১ উইকেট শিকার করেন করণ কেসিও। নেপালের সেরা বোলার সন্দ্বীপ লামিচানে ১০ ওভারে ৬৯ রান দিয়ে আঘা সালমানের উইকেটটি পান।

সর্বশেষ - মানিকগঞ্জ