dailynobobarta logo
আজ বৃহস্পতিবার, ২০ জুলাই ২০২৩ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | কনভার্টার
  1. অন্যান্য
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. খেলাধুলা
  5. গণমাধ্যম
  6. ধর্ম
  7. প্রযুক্তি
  8. বাংলাদেশ
  9. বিনোদন
  10. বিশেষ নিবন্ধ
  11. লাইফস্টাইল
  12. শিক্ষা
  13. শিক্ষাঙ্গন
  14. সারাদেশ
  15. সাহিত্য

গল টেস্টে পাকিস্তানের জয়

প্রতিবেদক
স্পোর্টস ডেস্ক
বৃহস্পতিবার, ২০ জুলাই ২০২৩ | ২:১৬ অপরাহ্ণ
গল টেস্টে পাকিস্তানের জয়

সৌদ শাকিলের বীরত্বে শ্রীলঙ্কার মাটিতে দারুণ এক জয় তুলে নিয়েছে পাকিস্তান। এই জয়ে সিরিজে ১-০তে এগিয়ে গেল সফরকারীরা। ১৩১ রান তাড়ায় চতুর্থ দিনের শেষ বেলায় দ্রুত ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়েছিল পাকিস্তান। কিন্তু ইমাম-উল-হকের অপরাজিত ফিফটি, বাবর আজম ও সৌদ শাকিলের ইতিবাচক ব্যাটিংয়ে প্রথম সেশনেই ৪ উইকেটের জয় পেয়েছে পাকিস্তান।

শ্রীলঙ্কার মাটিতে ও গল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের সাফল্যের তালিকায় তাই যুক্ত হলো আরেকটি টেস্ট জয়। ২০২২ সালে পাকিস্তানের সর্বশেষ সফরে গলে সর্বশেষ কোনো টেস্ট হেরেছিল শ্রীলঙ্কা। সব মিলিয়ে সফরকারী কোনো দল মাত্র ষষ্ঠবার গলে চতুর্থ ইনিংসে ব্যাটিং করে জিতল, সর্বশেষ জিতেছিল পাকিস্তানই, ২০২২ সালের ওই ম্যাচে।

গলে পাকিস্তানের এটি তৃতীয় জয়, সফরকারী কোনো দল হিসেবে এ ভেন্যুতে সর্বোচ্চ ম্যাচ জেতার রেকর্ডও গড়ল তারা। সব মিলিয়ে শ্রীলঙ্কার মাটিতে এটি পাকিস্তানের ষষ্ঠ জয়। দেশটিতে টেস্ট জয়ের হিসাবে ইংল্যান্ডকে ছুঁয়ে ফেলল তারা।

শেষ দিন ৭ উইকেট হাতে নিয়ে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল ৮৩ রান। শ্রীলঙ্কার তাই প্রয়োজন ছিল দ্রুত উইকেট। কিন্তু দিনের প্রথম বলটিই রমেশ মেন্ডিস করেছিলেন শর্ট লেংথে, তাতে পুল করে চার মারতে কোনো সমস্যা হয়নি বাবরের।

দিনে কী ঘটতে চলেছে, মেন্ডিসের ওই বল যেন ইঙ্গিত দিয়েছে সেটিরই। সে ওভারে ফ্লিক করে আরেকটি চার মারেন বাবর। পরের ওভারে প্রবাত জয়াসুরিয়াকে পাকিস্তান অধিনায়ক মারেন আরেকটি চার। পাকিস্তানের যা চাপ, অনেকটাই যেন মিলিয়ে যায় ওই তিনটি বাউন্ডারিতেই।

দিনের ষষ্ঠ ওভারে অবশ্য ব্রেকথ্রু পায় শ্রীলঙ্কা। জয়াসুরিয়ার আর্ম বল ফাঁকি দেয় বাবরের ব্যাট, রিভিউ নিলেও এলবিডব্লিউ থেকে বাঁচেননি পাকিস্তান অধিনায়ক। ২৮ বলে ২৪ রানে থামতে হয় তাকে। তবে বাবরের উইকেট প্রভাব ফেলেনি ইমামের ব্যাটিংয়ে।

অধিনায়ক ফেরার পর স্ট্রাইক পেয়ে প্রথম বলেই রমেশ মেন্ডিসকে লং অফের ওপর দিয়ে ছক্কা মারেন এ বাঁহাতি। পরের দুই ওভারে বাউন্ডারি না এলেও ইমাম ও শাকিলের জুটি দ্রুতই ভাঙতে পারেনি শ্রীলঙ্কা। শাকিলও খেলেন দারুণ কিছু শট। মেন্ডিসকে স্কুপ করে চার মারেন, জয়াসুরিয়াকে এক ওভারে আরও দুটি চার মারেন রিভার্স সুইপ ও প্রথাগত সুইপে।

পাকিস্তানের সফল রান তাড়ায় শাকিল ও বাবরের ইনিংস অবদান রেখেছে ঠিকই, কিন্তু গতকাল থেকে একপ্রান্ত আগলে রাখার কাজটি করেছেন মূলত ইমামই। গতকাল টপ অর্ডারের ধসের পর আজ মিডল অর্ডারে উইকেট হারালেও দলকে নিরাপদে নিয়ে গেছেন। শেষ দিকে পেয়েছেন মাইলফলকের দেখাও। মেন্ডিসের বলে সিঙ্গেল নিয়ে ক্যারিয়ারের অষ্টম ফিফটি পূর্ণ করেন এ বাঁহাতি।

ইমাম থাকলেও পাকিস্তান অন্য প্রান্তে উইকেট হারিয়েছে ঠিকই। রান বের করতে না পেরে হঠাৎ করেই অস্থির হয়ে ওঠা সরফরাজ আহমেদ ফেরেন প্রবাত জয়াসুরিয়াকে সুইপ করতে গিয়ে। ডিপ স্কয়ার লেগে ভালো ক্যাচ নেন প্রবাত জয়াসুরিয়া। তখন ৪ রান দরকার পাকিস্তানের, বাকি ৪ উইকেট। কিন্তু নেমেই ছক্কা মেরে পাকিস্তানের জয় নিশ্চিত করেন সালমান আগা। সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট শুরু আগামী ২৪ জুলাই, কলম্বোতে।

স্পোর্টস ডেস্ক
+ posts

সর্বশেষ - মানিকগঞ্জ