dailynobobarta logo
আজ মঙ্গলবার, ১৮ জুলাই ২০২৩ | ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | কনভার্টার
  1. অন্যান্য
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. খেলাধুলা
  5. গণমাধ্যম
  6. ধর্ম
  7. প্রযুক্তি
  8. বাংলাদেশ
  9. বিনোদন
  10. বিশেষ নিবন্ধ
  11. লাইফস্টাইল
  12. শিক্ষা
  13. শিক্ষাঙ্গন
  14. সারাদেশ
  15. সাহিত্য

পাল্টাপাল্টি হামলায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু ১

প্রতিবেদক
দৈনিক নববার্তা ডেস্ক
মঙ্গলবার, ১৮ জুলাই ২০২৩ | ৪:১২ পূর্বাহ্ণ
পাল্টাপাল্টি হামলায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু ১

শেরপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি হামলায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক জনের মৃত্যু হয়েছে। ১৭ জুলাই সোমবার ভোরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকাবস্থায় তিনি মৃত্যুর কুলে ঢলে পড়েন। দুপুরে ওই হাসপাতালের মর্গে তার ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়। এ দিকে তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে-সাথে এলাকায় শোকের ছায়ার পাশাপাশি উদ্বিগ্ন ও ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। অন্যদিকে ওই চাঞ্চল্যকর ঘটনায় দায়ের করা মামলায় প্রধান আসামী নূরে আলমসহ পলাতক আসামীরা এখনও গ্রেফতার হয়নি।

জানা যায়, স্থানীয় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ২ জুলাই বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে শেরপুর সদর উপজেলার কামারিয়া ইউনিয়নের রঘুনাথপুর চকপাড়া এলাকার মৃত ফরহাদ আলীর ছেলে আব্দুল খালেককে রাস্তায় একা পেয়ে এলাকার সাবেক চেয়ারম্যান নূরে আলম সিদ্দিকীর (৪৫) নেতৃত্বে তার অনুসারীরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে কুপিয়ে, পিটিয়ে রক্তাক্তসহ হাত-পা ও মরুদন্ড ভেঙ্গে ফেলে, ক্ষতি হয় কিডনির। পরে এলাকাবাসীর প্রতিরোধের মুখে দুর্বত্তরা ২ রাউন্ড ফাঁকাগুলি ছুড়ে সটকে পড়ে। পরে আব্দুল খালকে
তারা গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথম জেলা সদর হাসপাতালের ও পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি হলে সেদিন রাতেই তাকে আইসিইউতে রাখা হয়। তার পর থেকেই জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে ছিলেন খালেক।

ওই ঘটনায় খালেকের স্ত্রী আসমাউল হোসনা বাদী হয়ে নূরে আলম সিদ্দিকীকে প্রধান আসামী করে তার সহযোগীসহ ২২ জনকে স্ব-নামে ও অজ্ঞাতনামা আরও ৮/১০ জনের বিরুদ্ধে শেরপুর সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় পুলিশ ফারুক আহম্মদ (২৬) ও সোহেল রানা (৩৭) নামে এজাহারনামীয় ২ আসামিকে গ্রেফতার করলেও কদিন পরই তারা আদালত থেকে জামিন নিয়ে বেরিয়ে যায়। এর পর থেকেই প্রধান আসামীসহ অপরাপর সকল আসামী পলাতক রয়েছে।

এদিকে সোমবার বিকেলে ময়মনসিংহ থেকে গ্রামের বাড়িতে আব্দুল খালেকের লাশ পৌছার পর পরিবারের লোকজনসহ স্বজনদের আহাজারিতে পরিবেশ ভারি হয়ে ওঠে, শুরু হয় শোকের মাতম।

সরেজমিনে গেলে স্থানীয় সমাজসেবক ফজলুল হক মাস্টার, সাইদুর রহমান ও স্বপন মিয়াসহ অনেকেই জানান, নূরে আলমের সন্ত্রাসী বাহিনীর অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ। একটি প্রভাবশালী মহলের ছত্র-ছায়ায় থাকার অভিযোগ তুলে তারা বলেন, তার বিরুদ্ধে অপহরণ, ডাকাতি, হামলা-মাইরপিটসহ প্রায় ২০টি এবং ইউপি চেয়ারম্যান থাকাকালে তার বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া ১১টি দুর্নীতির মামলা এখনও চলমান রয়েছে। আব্দুল খালেক ছিলেন এলাকার সমাজসেবক এবং নূর আলম বাহিনীর নানা সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের প্রতিবাদী। তিনি ২ বছর আগে সরকারী চাকুরী ছেড়ে দিয়ে সমাজসেবার পাশাপাশি স্থানীয় আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয় হয়ে পড়েন এবং কিছুদিন আগে আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে লড়ার ঘোষনা দেন। এ নিয়েই খালেকের প্রতি আক্রোশ বশত: তাকে হত্যা করা হয়েছে।

খালেকের লাশের পাশে বুক চাপড়িয়ে কাঁদতে-কাঁদতে স্ত্রী আসমাউল হোসনা বলেন, অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় নুরে আলম ও তার বাহিনীর লোকজনের টার্গেটে ছিলেন তার স্বামী। তিনি প্রধান আসামী নূরে আলমসহ পলাতক সকল আসামিদের দ্রুত গ্রেফতারসহ স্বামী হত্যার সর্বাচ্চ শাস্তির দাবি জানান।

এ ব্যাপারে শেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বছির আহমেদ বাদল জানান, সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় আহত আব্দুল খালেক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন বলে শুনেছ। তার মৃত্যুর সনদসহ প্রয়োজনীয় তথ্য পাওয়ার পর মামলাটি হত্যা মামলায় মোড় নিতে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। সেইসাথে ওই ঘটনায় পলাতক প্রধান আসামী নূরে আলমসহ অন্যদের গ্রেফতার চেষ্টা চলছে।

Daily Nobobarta | Website | + posts

'সত্য প্রকাশে আপোসহীন দৈনিক' স্লোগান সংবলিত দৈনিক নববার্তা'য় থাকছে দেশের ৬৪ জেলার ৪৯৫ উপজেলার খবর।

সর্বশেষ - মানিকগঞ্জ