dailynobobarta logo
আজ রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩ | ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ | কনভার্টার
  1. অন্যান্য
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. খেলাধুলা
  5. গণমাধ্যম
  6. ধর্ম
  7. প্রযুক্তি
  8. বাংলাদেশ
  9. বিনোদন
  10. বিশেষ নিবন্ধ
  11. লাইফস্টাইল
  12. শিক্ষা
  13. শিক্ষাঙ্গন
  14. সারাদেশ
  15. সাহিত্য

ভারতকে কাঁদিয়ে অস্ট্রেলিয়ার ‘হেক্সা মিশন’ পূর্ণ

প্রতিবেদক
স্পোর্টস ডেস্ক
রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩ | ৯:৫৮ অপরাহ্ণ
ভারতকে কাঁদিয়ে অস্ট্রেলিয়ার 'হেক্সা মিশন' পূর্ণ

অপ্রতিরোধ্য ভারতকে কাঁদিয়ে ‘হেক্সা মিশন’ পূর্ণ অস্ট্রেলিয়ার। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় লিখেছিলেন ‘কেউ কথা রাখেনি।’ অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক প্যাট কামিন্স অবশ্য হেঁটেছেন বিপরীত পথে। ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে আগেই বলেছিলেন, আহমেদাবাদে দর্শকদের স্তব্ধ করে দিতে চান তিনি। শেষ পর্যন্ত কথা রেখেছেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররা। আহমেদাবাদ তো বটেই, পুরো ভারতকেই স্তব্ধ করে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ভারতের মাটিতে ২০২৩ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপের শিরোপা জিতল ধরলো অজিরা। ইতিহাসের সর্বোচ্চ ৬ষ্ঠ বিশ্বকাপ জিতলো অজিরা।

আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়াম রোববার পরিণত হয়েছিল নীলের মহাসমুদ্রে। নিজ দেশে এক যুগ পর বিশ্বকাপ উঁচিয়ে ধরবেন রোহিত শর্মারা, এমন স্বপ্নেই বিভোর ছিলেন লক্ষাধিক ভারতীয় সমর্থক। সেই কক্ষপথেই ছিলোও দলটি। কিন্তু পথে বাঁধা হয়ে দাঁড়ালেন ট্রাভিস হেড এবং মার্নাস ল্যাবুশেন। দুজনেই ধীরে ধীরে ভারতের কাছ থেকে ম্যাচটাকে নিয়ে গেলেন অনেকটা দূরে। শেষ পর্যন্ত তারাই হয়ে গেলেন ব্যবধান। অস্ট্রেলিয়া ফাইনাল জিতল ৬ উইকেটের ব্যবধানে।

ফাইনালে প্রত্যাশিত ব্যাটিং হয়নি ভারতের। পুরো বিশ্বকাপে এদিনই প্রথম চ্যালেঞ্জের মুখে ছিল ভারতের মিডলঅর্ডার। সেবারেই চ্যালেঞ্জ নিতে ব্যর্থ হলেন টিম ইন্ডিয়ার ব্যাটাররা। পুরো ম্যাচে টানা বাউন্ডারি খরায় ভুগেছেন ভারতীয় ব্যাটাররা। দুই দফা মিলিয়ে টানা ৩৫ ওভার বাউন্ডারির দেখা পাননি ভারতের মিডল অর্ডার। স্বাভাবিকভাবেই রানটা মনমতো হয়নি তাদের।

কিন্তু ২৪১ রানের লক্ষ্যে বোলিং যেমন হওয়া দরকার ছিল, ঠিক তেমনই বল করেছে ভারতের বোলাররা। জাসপ্রিত বুমরাহ আর মোহাম্মদ শামিকে শুরুতে সামাল দিতেই পারেনি অজি ব্যাটিং লাইনআপ। ডেভিড ওয়ার্নার, মিচেল মার্শ আর স্টিভেন স্মিথ তিনজনেই পরাস্ত হয়েছেন দূর্বল ফুটওয়ার্ক আর নিজেদের ভুলে। কিন্তু ম্যাচে ভারতের সুখ টিকেছে ওই পর্যন্তই। ট্রাভিস হেড এরপর ভারতের মাথার ব্যাথা বাড়িয়েছেন আর মার্নাস ল্যাবুশেন ছিলেন চীনের প্রাচীর হয়ে। চতুর্থ উইকেট জুটিতে যেন ম্যাচটাকেই ছিনিয়ে নিলেন তারা।

অথচ শুরতেই ওয়ার্নারকে ফিরিয়ে দারুণ সূচনা এনে দিয়েছিলেন শামি। দ্বিতীয় ওভারেই বিরাট কোহলিকে স্লিপে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেছেন ফর্মের তুঙ্গে থাকা এই পেসার। দলীয় ১৬ রানেই প্রথম উইকেটের পতন। ভরসা ছিল মিচেল মার্শের উপর। দূর্বল ফুটওয়ার্কের মাশুল দিয়েছেন তিনিও। বুমরাহর বলে উইকেটের পেছনে কেএল রাহুলের হাতে আটকা পড়েছিলেন এই অলরাউন্ডার।

স্টিভেন স্মিথ আউট হয়েছেন নিজের আর আম্পায়ারের মিলিত ভুলে। বলের ইম্প্যাক্ট ছিল স্ট্যাম্পের বাইরে। কিন্তু আম্পায়ার আঙুল তুলেছেন। খানিক দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভোগা স্মিথও আর রিভিউ নেননি। হাঁটা দিয়েছেন প্যাভিলিয়নের দিকে। এটাই যেন পুরো ম্যাচে ভারতের শেষ উৎসব। এরপর ক্রিজে থাকা হেড আর ল্যাবুশেন কেবল যন্ত্রণাই বাড়িয়েছেন ম্যান ইন গ্রিনদের। তাদের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে গ্যালারীতে নেমেছে শ্মশানের নীরবতা।

পুরো ম্যাচে আর একবারই সুযোগ পেয়েছিল ভারত। বুমরাহর বলে এলবিডব্লিউর আবেদন ফিরিয়ে দেন আম্পায়ার। পরে রিভিউতে দেখা গেল আম্পায়ার্স কল। হতাশায় মুখ ঢাকতে বাধ্য হলেন পুরো দল।

লম্বা এই জুটির পথে সেঞ্চুরি পেয়েছেন ট্রাভিস হেড। ৯৫ বলে স্পর্শ করেছেন তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগার। আর ৯৯ বলে ধৈর্য্যশীল এক ইনিংস খেলে অর্ধশতকের দেখা পেয়েছেন ল্যাবুশেন। ম্যাচটা অবশ্য শেষ করা হয়নি ট্রাভিস হেডের। দলের জয় থেকে মাত্র ২ রান দূরে থাকতে মোহাম্মদ সিরাজের বলে আউট হয়েছেন তিনি। তবে এর আগেই খেলে ফেলেছেন ১৩৭ রানের ম্যাচজয়ী এক ইনিংস। আর তাতেই ২০১৯ সালে হারিয়ে ফেলা বিশ্বকাপটা আজ আবারও ফিরছে অস্ট্রেলিয়াতে।

ঘরের মাঠে একযুগ পর শিরোপা জেতার হাতছানি ছিল ভারতের। টুর্নামেন্টজুড়ে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা রোহিত শর্মাদের নিয়ে আশাবাদী হতে পারে যে কেউই। তবে টানা দশম জয়ের পর ফাইনালে এসেই হোঁচট খেলো ভারত। ব্যাটিং ব্যর্থতার পর বোলিংয়েও তেমন ছাপ রাখতে পারলেন না বোলাররা। শিরোপার স্বপ্নভঙ্গের দ্বারপ্রান্তে টিম ইন্ডিয়া। অস্ট্রেলিয়ার রেকর্ড ষষ্ঠ শিরোপা জিততে প্রয়োজন আর মোটে ১০ রান।

এদিকে, খেলা শেষ হওয়ার আগেই স্টেডিয়াম ছাড়তে শুরু করেন ভারতীয় দর্শকরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া বেশ কয়েকটি ভিডিওতে দেখা যায়, আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়াম ছেড়ে যাচ্ছেন সমর্থকরা

দীর্ঘদিন পর আরেকটি শিরোপা জয় দেখার প্রার্থনায় ছিল গোটা ভারত। যার একটি অংশ আজ আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে হাজির হয়েছিলেন। বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ এই ভেন্যুর ধারণক্ষমতার হিসাবে দেখা হলে— সংখ্যাটা হতে পারে এক লাখ ৩০ হাজার।

তবে বাস্তবে নিশ্চিতভাবেই সংখ্যাটা আরও বেশি হবে। নীল সমুদ্রে যেন ভাসছিল আহমেদাবাদ। তবে এই সমুদ্রসম দর্শকদের নিস্তব্ধ করার কথা আগেই জানিয়ে রেখেছিলেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক প্যাট কামিন্স। দারুণ পারফরম্যান্সে মাঠে আজ ঠিকই দর্শকদের চুপ করিয়ে দিলেন।

ভারতের ভরাডুবির দিনে অনেকে কাঠগড়ায় তুলছেন ভারতীয় দর্শকদেরকেও। খেলোয়াড়দের দুঃসময়ে তাদের উৎসাহ দেননি বলেও অভিযোগ অনেকের। এই তালিকায় আছেন ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার ও ধারাভাষ্যকার নাসের হুসেন। স্কাই স্পোর্টসে তিনি বলেছেন, ‘মনে হচ্ছে বিশ্বকাপ ফাইনাল হচ্ছে ফাঁকা মাঠে। ভারতের দর্শকদের জন্য লজ্জা’।

স্পোর্টস ডেস্ক
+ posts

সর্বশেষ - মানিকগঞ্জ